প্রবেশদ্বার:ভূগোল

ভূগোল প্রবেশদ্বার

ভূগোল (ইংরেজি: Geography) হচ্ছে জ্ঞানের সেই শাখা যেখানে পৃথিবীর ভূমি, এর গঠন বিন্যাস, এর অধিবাসী সম্পর্কিত সমস্ত উপাদানের বিতরণ ও বিন্যাস সংক্রান্ত বিষয়াদি আলোচিত হয়। এর ইংরেজী প্রতিশব্দ "Geography" এসেছে গ্রীক ভাষার: γεωγραφία (ইংরেজীতে: Geographia) থেকে,যার শাব্দিক অর্থ: "পৃথিবী সম্পর্কিত বর্ণনা বা আলোচনা"। এই শব্দটি খ্রিস্টপূর্ব ২য় শতকে গ্রিক জ্ঞানবেত্তা এরাতোস্থেনেস প্রথম ব্যবহার করেন। ভূগোলে মানুষের বসবাসের জগৎ ও তার সাথে সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় নিয়েই আলোচনা করা হয়ে থাকে। উদাহরণস্বরূপঃ ভৌত ভূগোলে জলবায়ু, ভূমি ও পানি নিয়ে গবেষণা করা হয়; সাংস্কৃতিক ভূগোলে কৃত্রিম, মনুষ্যনির্মিত ধারণা যেমন দেশ, বসতি, যোগাযোগ ব্যবস্থা, পরিবহন, দালান, ও ভৌগোলিক পরিবেশের অন্যান্য পরিবর্তিত রূপ আলোচনা করা হয়। ভূগোলবিদেরা তাঁদের গবেষণায় অর্থনীতি, ইতিহাস, জীববিজ্ঞান, ভূতত্ত্ব এবং গণিতের সহায়তা নেন।

নির্বাচিত নিবন্ধ

সেন্ট মার্টিন্‌স দ্বীপ বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পূর্বাংশে অবস্থিত একটি প্রবাল দ্বীপ। এটি কক্সবাজার জেলার টেকনাফ হতে প্রায় ৯ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং মায়ানমার-এর উপকূল হতে ৮ কিলোমিটার পশ্চিমে নাফ নদীর মোহনায় অবস্থিত। প্রচুর নারিকেল পাওয়া যায় বলে স্থানীয়ভাবে একেনারিকেল জিঞ্জিরাও বলা হয়ে থাকে। সেন্ট মার্টিন্‌স দ্বীপ সম্পর্কে বিস্তারিত পড়ুন...

নির্বাচিত ছবি

পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বনভূমি সুন্দরবনে আলো ছায়ার খেলা
পরামর্শ

দর্শনীয় স্থান

কান্তজীউ মন্দির বা কান্তজির মন্দির বা কান্তনগর মন্দির বাংলাদেশের দিনাজপুর শহর থেকে ২০ কিলোমিটার উত্তরে এবংকাহারোল উপজেলা সদর থেকে সাত কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে সুন্দরপুর ইউনিয়নে, দিনাজপুর-তেঁতুলিয়া মহাসড়কের পশ্চিমে ঢেঁপা নদীর তীরে অবস্থিত একটি প্রাচীন মন্দির। এটি নবরত্ন মন্দির নামেও পরিচিত কারণ তিনতলাবিশিষ্ট এই মন্দিরের নয়টি চূড়া বা রত্ন ছিলো। বাকীটুকু পড়ুন...

আপনি যা যা করতে পারেন

ভূগোল সংবাদ

  • বিশ্বের প্রাচীন মানচিত্র হিসেবে সর্বত্র পরিচিত ইমাগো মুন্ডি (বাংলায় অর্থ: বিশ্বের ছবি) ৬ষ্ঠ শতাব্দীতে ব্যাবিলনিয়ানদের দ্বারা তৈরীকৃত।
  • পরিচিত বিশ্বের আদি মানচিত্রটি প্রাচীন ব্যাবিলনেখ্রিস্টপূর্ব ৯ম শতাব্দীতে অঙ্কন করা হয়েছিলো
  • প্রাচীন গ্রিসে কবি হোমারকে ভূগোলের 'প্রতিষ্ঠাতা' হিসেবে দেখা হতো। তাঁর ইলিয়াড এবং ওডিসি মহাকাব্য কেবল সাহিত্যই নয়, সেই সঙ্গে ভৌগোলিক তথ্যেরও এক সমৃদ্ধ ভান্ডার। হোমার এক বিশাল সমুদ্রের দ্বারা চতুর্দিক ঘিরে থাকা একটি বৃত্তাকার পৃথিবীর বর্ণনা দিয়েছেন।

নির্বাচিত অঞ্চল

ভূগোলবিদগণ

ভূগোলবিদগণের ব্যবহৃত উপকরণসমূহ


আন্তর্জাতিক ভূগোল

এশিয়া পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ও সবচেয়ে জনবহুল মহাদেশ। এটি ভূপৃষ্ঠের ৮.৬% ও স্থলভাগের ২৯.৪% অংশ জুড়ে অবস্থিত। এশিয়াতে বিশ্বের ৬০%-এরও বেশি মানুষ বসবাস করেন। এশিয়াকে বৃহত্তর স্থলভাগ ইউরেশিয়ার পূর্ব অংশ হিসেবে ধরা হয়। এশিয়ার পূর্ব এবং উত্তর গোলার্ধকে প্রথাগতভাবে কখনও কখনও আফ্রিকা-ইউরেশিয়ার অন্তর্ভুক্ত বলা হয়ে থাকে। এই অঞ্চলের পশ্চিমাংশ অনেক আগে ইউরোপের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। এশিয়া মহাদেশের পূর্বদিকে প্রশান্ত মহাসাগর; পশ্চিমদিকে ভূমধ্যসাগর, কৃষ্ণসাগর, কাস্পিয়ান সাগর, ইউরাল পর্বত এবং কিছুদূর পর্যন্ত ইউরাল নদী অবস্থিত। এছাড়া এই মহাদেশের উত্তরদিকে সুমেরু মহাসাগর আর দক্ষিণদিকে ভারত মহাসাগর... এশিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন...]]

বিষয়শ্রেণীসমূহ

ভূগোল সম্পর্কিত আরও তথ্য

সম্পর্কিত প্রবেশদ্বারসমূহ

সম্পর্কিত উইকিমিডিয়া

সার্ভার ক্যাশ খালি করুন

Dieser Artikel basiert auf dem Artikel প্রবেশদ্বার:ভূগোল aus der freien Enzyklopädie Wikipedia und steht unter der Doppellizenz GNU-Lizenz für freie Dokumentation und Creative Commons CC-BY-SA 3.0 Unported (Kurzfassung). In der Wikipedia ist eine Liste der Autoren verfügbar.